প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন ১৭-২৩ মে ফের ‘লকডাউন’,

প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন ১৭-২৩ মে ফের ‘লকডাউন’,

নিউজ ডেস্ক: দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ না কমা এবং ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের কারণে চলমান বিধিনিষেধ বা ‘লকডাউন’ আরও এক সপ্তাহ বাড়ানোর প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সোমবার (১৭ মে) ভোর ৬টা থেকে চলমান লকডাউন বা বিধিনিষেধ আগামী ২৩ মে রবিবার মধ্যরাত পর্যন্ত বলবৎ থাকছে। এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

একই সঙ্গে জনসাধারণকে মাস্ক পরতে বাধ্য করতে সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন -২০১৮ এর সংশোধনী এনে পুলিশকে ক্ষমতা দেওয়ারও কথা ভাবা হচ্ছে। এ বিষয়ে ডিজি হেলথের কাছে পরামর্শ চাওয়া হয়েছে।

ডিজি হেলথের পরামর্শ পেলে তা আইন মন্ত্রণালয়ের মতামতের ভিত্তিতে কেবিনেটে উপস্থাপনের পর রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশ আকারে জারি করা হবে। এ নিয়ে ক্যাডার সার্ভিসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কারও ভুল বোঝাবুঝির সুযোগ নেই।

শনিবার (১৫ মে) গণমাধ্যমে এ তথ্য জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী চলমান বিধিনিষেধ শেষে আগামী ১৭-২৩ মে নতুন করে অনুমোদন দিয়েছেন। রোববার এ নিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ১৭-২৩ মে আগর যে বিধিনিষেধ ছিল, তা চলমান থাকবে। ঈদের পর সংক্রমণ বাড়তে পারে।

ফরহাদ হোসেন বলেন, ঈদের পর ২২ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত সংক্রমণ বাড়তে পারে বলে আমাদের ধারণা। এজন্য বিধিনিষেধ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ঈদের ছুটি শেষে রোববার (১৬ মে) প্রথম কর্ম দিবস, সেই কর্মদিবসে লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রজ্ঞাপন হবে। তবে সেখানে আগের বিধিনিষেধ রাখা হবে বলে জানান ফরহাদ হোসেন।

চলতি বছর করোনা সংক্রমণ বাড়ায় গত ৫ এপ্রিল থেকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত ঢিলেঢালা লকডাউন পালন হলেও সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ায় ১৪ এপ্রিল থেকে ‘কঠোর লকডাউন’ ঘোষণা করে সরকার। সবশেষ তা ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

আর এবারের ঈদে লঞ্চ-ট্রেন এবং দূরপাল্লার বাস বন্ধ রাখা হয়েছে। কিন্তু মানুষ বাড়ি ফিরছেন ঝুঁকি নিয়ে। ফলে করোনা সংক্রমণেরও ঝুঁকি তৈরি হয়েছে।